পড়াশোনা

ফেব্রুয়ারিতেও খুলছে না শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

করোনার এই মহামারিতে ছাত্র-ছাত্রী কথা চিন্তা করে সরকার বারবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত নিলেও খুলতে পারছেনা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। ফেব্রুয়ারি মাসে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার কথা থাকলেও এই মাসে খুলছেনা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। কেননা করোনা এখনো স্বাভাবিক এ আসি নি।

ফেব্রুয়ারি ৩০ জানুয়ারি সকাল সাড়ে ১০ টায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ফেব্রুয়ারি মাস পর্যবেক্ষন করে মার্চ-এপ্রিল মাসে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত দেয়া হবে। এছাড়াও গণভবন থেকে এইচএসসি বা সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ উদ্বোধন করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, অনলাইন বা সংসদ টিভির মাধ্যমে শিক্ষার্থীর অনলাইনে ক্লাস হচ্ছে। তবে ফেব্রুয়ারি মাস কে নজরে রেখে আগামী মার্চ-এপ্রিল মাসে আংশিকভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে বলে জানায়। এছাড়াও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে জড়িত শিক্ষকসহ সবাইকে ভ্যাকসিন এর আওতায় খুব দ্রুত আনা হবে বলে জানান ।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান না খোলায় সরকারকে বিভিন্ন সমালোচনায় পড়তে হচ্ছে। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমালোচকদের উদ্দেশ্য করে বলেছেন,শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা বা সরাসরি পরীক্ষা নেওয়ার পর যদি কোনো শিক্ষার্থীর করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যেত তাহলে এই দায় কে নিতো? সমালোচক কি নেবে এই দায়? নিশ্চয়ই নেবে না। তখন তারা ভিন্ন পন্থা অবলম্বন করতেন।সমালোচক শুধু সমালোচনা করতে পারে। সুনির্দিষ্ট কোনো সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারে না।

অটোপ্রমোশন নিয়ে কি বলেছে প্রধানমন্ত্রী?

অটোপ্রমোশন নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করছে অনেকে। ইতিমধ্যে পরীক্ষা ছাড়া পাস দেওয়া এ বিষয়টা নিয়ে সরকারকে অনেক সমালোচনার মুখে পড়তে হয়েছে এবং অনেকেই বিরূপ মন্তব্য করেছে। এগুলা নিয়ে শিক্ষার্থীর উপর এক ধরনের মানসিক চাপ দেখা দিচ্ছে। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানিয়েছে, শিক্ষার্থীদের উপর চাপ না আসা আমরা বিভিন্ন ভাবে চেষ্টা করছি। আর অটোপাস নিয়ে বিরূপ মন্তব্য না করার আহ্বান জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রী।

সরকার প্রধান বলেছে, করণা শুরু হওয়ার পর আমরা অপেক্ষা করেছি এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়ার জন্য। কিন্তু কোনভাবেই করো না স্বাভাবিক কে আসে নি। দিনদিন ভাইরাসটি আরো বেশি বড় আকার ধারণ করেছিল। তাই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গত ২০২০ সালের ১৮ মার্চ থেকে বন্ধ রাখা হয়।বারবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার কথা ভাবলেও শিক্ষার্থীদের কথা ভেবে সেটা সম্ভব হয়ে ওঠেনি । আর যার কারণে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হয়নি।

ট্যাগ

আরও পড়তে পারেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *