সর্বশেষসারাদেশ

চোরাকারবারীদের পছন্দের রুটে পরিণত হয়েছে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ।

গোপন খবরের ভিত্তিতে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর অবগত হয় , মঙ্গলবার সকাল ৭ টার দিকে বিপুল পরিমাণ অবৈধ স্বর্ণ ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের মাধ্যমে বাংলাদেশ প্রবেশ করবে ।

উক্ত তথ্যের ভিত্তিতে মঙ্গলবার সকাল থেকেই সজাগ ছিল শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর , মঙ্গলবার সকাল ৭ টার দিকে দুবাই থেকে আসা ইউএস-বাংলার একটি ফ্লাইট হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে ।

অবতরণের সাথে সাথেই কালবিলম্ব না করে গোয়েন্দা বিভাগ বিমানটি পরীক্ষা করার জন্য ভেতরে প্রবেশ করে। কিন্তু বিমানটি তল্লাশি করেও কোন স্বর্ণ না পাওয়ায় গোয়েন্দা টিম যখন হতাশ ঠিক তখনই বিমানের ফুড স্টুডেন্ট এর ভিতরে খুবই সুকৌশলে লুকানো ৬০ স্বর্ণের বারের হাদিস মিলে । যে পরিমাণ স্বর্ণ গোয়েন্দা টিম উদ্ধার করেছে তার পরিমাণ ৭ কেজি যার বর্তমান বাজারমূল্য প্রায় ৫ কোটি টাকা ।

এমনকি যখন বিমান তল্লাশি করা হয়েছিল তখন তারা খুব সুকৌশলে স্বর্ণগুলো কাভাড ভ্যানের ভিতরে উঠিয়ে ফেলে ছিল । এ সময় যে সকল ব্যক্তি হাইলিট কাবাব ভ্যানের ভিতর আসা-যাওয়া করেছে ইউএস-বাংলা কর্মীসহ এমন ৮ জনকে গ্রেপ্তার করেছে গোয়েন্দা টিম । গোয়েন্দা টিম সন্দেহ করছে এত টাকা মূল্যের স্বর্ণ কেউ এমনি এমনি হাইলাইট কাভার্ডভ্যানের ভিতরে দিয়ে দেবে না নিশ্চয়ই ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সের কর্মীরা এতে যুক্ত রয়েছে ।

ভৌগোলিকভাবে দক্ষিণ এশিয়ার ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার চোরাকারবারিরা রুট হিসেবে বাংলাদেশ বিমানবন্দর কে ব্যবহার করে , আর এ সকল স্বর্ণ তারা ব্যবহার করে অস্ত্রের মূল্য পরিশোধ , মাদকের মূল্য পরিশোধ ও অন্যান্য অনৈতিক কার্যক্রমে । এ বিষয়ে বিশ্লেষকেরা বলছেন চোরাচালান বন্ধ করা যাচ্ছে না তার একটি কারণ বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়া ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া কে ভৌগোলিকভাবে সংযুক্ত করেছে যার ফলে চোরাকারবারীদের পছন্দের রুটে পরিণত হয়েছে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর বাংলাদেশ ।শুল্ক অধিদপ্তরের তথ্য মতে তারা গত ৫ বছরে শুধু আকাশ পথে আসা স্বর্ণ ১৩০০ কেজি তার করেছে ।

ট্যাগ

আরও পড়তে পারেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *