আন্তর্জাতিক

ভয়ঙ্কর পরিণতির সামনে পৃথিবীর ফুসফুস আমাজন , বিরূপ প্রভাব পড়তে চলেছে জনজীবনে ।

আমাজন , যেখান থেকে পৃথিবীর ২০ ভাগ অক্সিজেন আসে । যে কারণে এই অ্যামাজন বন কে বলা হয় পৃথিবীর ফুসফুস , তবে দুঃখের বিষয় এটাই যে এই পৃথিবীর ফুসফুস কেই মানুষ ধীরে ধীরে ধ্বংস করে চলেছে অবলীলায় ।

তবে এবার মানুষের হাত থেকে সেরা বিনাশী শক্তির শিরোপা ছিনিয়ে নিতে আসছে জলবায়ু পরিবর্তন । মানুষের সাথে সাথে অ্যামাজন বন ধ্বংসের মূল কারণটি এখন জলবায়ু পরিবর্তন এমনটাই আভাস দিয়েছে বিজ্ঞানীরা ।

মানুষের ধারালো কুঠারের সামনে বোনের শেষ বৃক্ষটি ধরাশায়ী হওয়ার আগেই আমাজন বনের বৃক্ষনিধনের চূড়ান্ত আঘাত আনবে জলবায়ু পরিবর্তন ।

২০১৮ সালেই বিজ্ঞানীরা জানিয়েছিল অ্যামাজন বন আর মাত্র ২০ ভাগ বন নিধন কে গ্রহণ করতে পারবে , এরপর থেকেই অ্যামাজন বন বৃষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় আর্দ্রতা তৈরি করতে ব্যর্থ হয়ে পরিণত হতে থাকবে শুষ্ক বাস্তুসংস্থানে ।

এছাড়াও ইতিমধ্যে একজন বিজ্ঞানী অ্যামাজন বন এর অন্তিম সময়ও নির্ধারণ করে দিয়েছেন , সংখ্যাতাত্ত্বিক ভৌগোলিক বিশেষজ্ঞ রবার্ট ওয়াকা ( university of Florida centre for Latin America এর একজন গবেষক ) তিনি বলেন :- ২০৬৪ সালে অ্যামাজন চিরতরে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে , এ যেন মানবসভ্যতা বিরূপ জলবায়ুর মধ্যে অ্যামাজন নিধনের এক নিষ্ঠুর খেলা ।

তার কথাগুলো অহেতুক বলে উড়িয়ে দেওয়া নিছক বোকামি কেননা সবগুলো প্রভাবক আমলে নিলে দেখা যায় এসকল বিপর্যয়ের মধ্য দিয়ে অতিক্রম করা অসহনীয় এবং ঘন ঘন পরিবর্তনের কারণে অ্যামাজন ক্ষতি পুষিয়ে ওঠার সুযোগ পাবে না , হারাবে বন বিস্তারের গতি , ব্যাহত হবে নানা প্রজাতির গাছের বিস্তার ।

ট্যাগ

আরও পড়তে পারেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *