স্বাস্থ্য

শসা মানবদেহের জন্য খুবই উপকারী।

শসা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী একটি সবজি। প্রায় ১২ মাস পাওয়া যায় এই সবজি। শসা খেলে মানবদেহের নানাবিধ উপকার রয়েছে তার মধ্যে ওজন নিয়ন্ত্রণ, পানির অভাব পূরণ, ও রূপচর্চা অন্যতম।

শসাতে প্রায় ৯৫ ভাগ পানি থাকে। যার কারণে শসা শরীরের আদ্রতা ধরে রাখতে পারে এবং ভেতরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে দেহ শীতল রাখতে সহায়তা করে। শসাতে ক্যালরির পরিমাণ খুবই কম এবং এতে কোনো চর্বি বা কোলেস্টেরল নেই।

শসা খেলে কি কি উপকার মানবদেহে.

ত্বকের পরিচর্যায় শসা: শসাতে রয়েছে ভিটামিন এ, বি, ও সি যা মানব দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তি বাড়ায়। এছাড়াও শসাতে ম্যাগনেসিয়াম, পটাশিয়াম ও সিলিকন থাকে যার কারণে শসা ত্বকের অনেক উপকারে আসে। আর এই জন্য শসা ত্বকের জন্য ব্যবহার করা হয়।সূর্যের আলোর কারণে যদি ত্বকের জ্বালা পোড়া করে তাহলে শসা কেটে সেখানে লাগালে উপকার পাওয়া যায়।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে: ফাইবার ও ফ্লয়েড সমৃদ্ধ শসা শরীরে ফাইবার ও পানির পরিমাণ বাড়াবে। এছাড়া শসায় রয়েছে স্টেরল নামের এক ধরনের উপাদান যা কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম ও ফাইবার থাকার কারণে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে।

ওজন কমাতে সাহায্য করে:শসার উচ্চমাত্রায় পানি এবং ফাইবার রয়েছেএবং নিম্নমাত্রায় ক্যালোরি রয়েছে। যা ওজন কমাতে সাহায্য করে।যারা ওজন কমাতে চায় তাদের জন্যে শসা খুবই উপকারী একটি সবজি। এছাড়াও শসা কাঁচা চিবিয়ে খাওয়া যাই।

হজম এবং কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যা: শসা হজমশক্তি বাড়ায় এবং কোষ্ঠকাঠিন্য জনিত সমস্যা দূর করে।নিয়মিত শসা খেলে দীর্ঘমেয়াদি কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয় এবং আমাদের দেহে যেসব বিষাক্ত বর্জ্য পদার্থ থাকে সেগুলো অপসারণের সাহায্য করে।

ডায়াবেটিস ও কিডনির জন্য উপকারী: শসা খেলে শরীরের ইউরিক এসিডের পরিমাণ ঠিক রাখে যার জন্য কিডনি জনিত সমস্যা দূর হয়। কিডনি থাকে সবল সুস্থ-সতেজ।

চোখের সমস্যা দূর করে:গোল করে কেটে শসা যদি চোখের উপরের লাগিয়ে রাখা হয় তাহলে চোখের নিচে কালো দাগ দূর হয় এবং চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়ে। এছাড়া শসার মধ্যে থাকে খনিজ সিলিকা আমাদের নখ এবং চুলের সমস্যা দূর করে।

আর এভাবেই সহসা আমাদের শরীরের নানাবিধ উপকার সাধন করে। মানবদেহের জন্যে শসা খুবই উপকারী একটি সবজি।

ট্যাগ

আরও পড়তে পারেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *