স্বাস্থ্য

প্রতিদিন গাজর খাওয়ার উপকারিতা।

নিয়মিত ভিটামিন 'এ' খাচ্ছেন? ভুলে যান বাইরের ভিটামিনের কথা। খেয়ে নিন একটি কমলা রঙের গাজর। কারণ একটি গাজর আপনাকে দিতে পারবে ভিটামিন 'এ' ছাড়াও নানা উপকার। একে তাই বলা হয়ে থাকে 'শক্তিশালী' খাদ্য উপাদান। শুধু ভিটামিন 'এ' পাওয়া যায় তা নয়, গাজরে রয়েছে নানাবিধ উপকার। এটি আপনাকে উপহার দেবে সুন্দর ত্বক থেকে শুরু করে ক্যান্সারের থেকে সুরক্ষাও। আসুন জেনে নিই একটি গাজর থেকে আপনি কি কি উপকার পাচ্ছেন

১. আগে কখনো গাজর না খেয়ে থাকলে এখন থেকেই শুরু করুন গাজর খাওয়া। কারণ গাজর খেলে বৃদ্ধি পাবে আপনার দৃষ্টিশক্তি। এতে আছে বেটা ক্যারোটিন যা আমাদের লিভারে গিয়ে ভিটামিন 'এ' তে বদলে যায়। যা পরে চোখের রেটিনায় গিয়ে পৌঁছিয়ে চোখের দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে সাহায্য করে, সেই সাথে রাতের বেলায় অন্ধকারেও চোখের ভালো দেখার জন্য দরকারি এমন এক ধরনের বেগুনি পিগ্নেন্ট এর সংখ্যা বাড়িয়ে দিয়ে দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে সাহায্য করে গাজর।

২. যারা গাজর খান তাদের ক্যান্সারের ঝুঁকি কম থাকে। গাজরে আছে falcarinol এবং falcarindiol যা আমাদের শরীরে এন্টিকান্সার উপাদানগুলোকে রিফিল করে। তাই গাজর খেলে বেস্ট, কোলন, ফুসফুসের eating-carrots ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি কম থাকে।

৩. গাজর শুধু শরীরের জন্য ভালো তাই নয় এটি আমাদের জন্য এন্টি এজিং উপাদান হিসেবেও কাজ করে। এতে যে বেটা ক্যারোটিন আছে তা আমাদের শরীরের ভেতরে গিয়ে এন্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে আমাদের শরীরের ক্ষয়প্রাপ্ত সেলগুলোকে ঠিকঠাক করে যা সাধারণ মেটাবোলিজমের কারণে হয়ে থাকে। এছাড়াও এটি এজিং সেলগুলোর গতি ধীর করে দিতে সাহায্য করে, ফলে আপনি ধরে রাখতে পারবেন আপনার যৌবনকে অধিক সময়ের জন্য।

৪. সুন্দর ত্বকের জন্যও গাজর খেতে পারেন। এটা আপনার ত্বককে ভেতর থেকে সুন্দর করে তুলতে সাহায্য করবে। এর ভিটামিন 'এ' ও এন্টিঅক্সিডেন্ট আপনার ত্বকের রোদে পোড়া ভাব দূর করবে। সেই সাথে ভিটামিন 'এ' ত্বকের অযাচিত ভাঁজ পড়া, কালো দাগ, ব্রন, ত্বকের রঙের অসামাঞ্জসসতা ইত্যাদি দূর করে আপনাকে সুন্দর হয়ে উঠতে সাহায্য করবে।

৫. এছাড়াও গাজর একটি ভালো এন্টিসেপ্টিক হিসেবেও কাজ করে। এটি ইনফেকশন হওয়া থেকে রক্ষা করে। কোথাও পুড়ে গেলে বা কেটে গেলে এখানে লাগিয়ে নিন কুচি করা গাজর বা সিদ্ধ করা গাজরের পেস্ট। আপনার ইনফেকশন হওয়ার আশঙ্কা আর থাকবেনা।

৬. এছাড়াও গাজর বাইরে থেকে ত্বকের অনেক উপকার করে। এটা ব্যবহার করতে পারেন ফেসিয়ালের উপাদান হিসেবেও।

৭. এছাড়াও হৃদপিন্ডের অসুখে এটি ভালো কাজ করে। এর ক্যারোটিনয়েডগুলো হৃদপিন্ডের নানা অসুখের ওষুধ হিসেবে কাজ করে। যেসব খাবারে যেমন: গাজরের উচ্চমাত্রাই এই উপাদান পাওয়া যায় সেসব খাবার খেলে হৃদপিন্ডের রোগের ঝুঁকি অনেক কমে আসে।

৮. গাজরে উপস্থিত ভিটামিন 'এ' লিভার গিয়ে তাকে শরীর থেকে নানা ধরনের টক্সিন জাতীয় খারাপ উপাদান পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। এছাড়াও গাজরের এই উপাদান লিভার থেকে অতিরিক্ত চর্বি সরিয়ে ফেলতে সাহায্য করে। সেই সাথে গাজরের ফাইবার কোলন পরিষ্কার রাখে। এবং কোষ্ঠকাঠিনার হাত থেকে আপনাকে রক্ষা করবে।

৯. সুন্দর ও সুস্থ সবল দাঁত চান? তবে এখনি গাজর খাওয়া শুরু করুন। গাজর আপনার দাঁত ও মুখ গহ্বর পরিষ্কার রাখে। গাজর মুখের প্ল্যাক ও খাবারের মুখ থেকে দূর করে টুথ পেস্ট ও টুথ ব্রাশের মতই। এছাড়াও গাজরের মিনারেলগুলো দাঁত মজবুত থাকতে সাহায্য করে অনেকাংশেই।

১০. হার্ভাড বিশ্ববিদ্যালয় দ্বারা পরিচালিত এক সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে যে যারা সপ্তাহে ৬টির বেশি গাজর খেয়েছেন বা খাচ্ছেন তাদের স্ট্রোকের ঝুঁকি যারা এর থেকে কম পরিমানে কম বা একটি গাজর খাচ্ছেন তাদের তুলনায় অনেক কম হয়েছে। তাই স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে হলে এখনি নিজের খাবারের তালিকায় যুক্ত করুন গাজর।

জানা হয়ে গেল গাজরের নানা উপকারিতার কথা। একটু ভালো থাকার জন্য আমরা কত কিছুই না করি। যদি একটি খাদ্য উপাদান আমাদের দৈনন্দিন খাদ্য তালিকায় যোগ করে নিজেদের আরেকটু ভালো রাখতে পারি তাহলে তা কেন করব না? তাই আসুন নিয়মিত গাজর খায় নিজেকে সুস্থ রাখি।

আরও পড়তে পারেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *