খুলনাসারাদেশ

৩ দশক ধরে ২৭ টি বিলে ফলেনি ফসল , নতুন উদ্যোগ গ্রামবাসীর ।

যশোরের কেশবপুর ও মনিরামপুরে অবস্থিত ২৭ টি বিলে জলাবদ্ধতার কারণে ৩ দশক ধরে বোরো ধান আবাদ করতে পারছেনা স্থানীয় কৃষকেরা । কিন্তু এবার দুই উপজেলার 4 ইউনিয়নের জনগণ নিজেদের উদ্যোগেই এসব বিলের পানি সেচে ফলানোর উদ্যোগ গ্রহণ করেছে ।

উক্ত বিলগুলোতে পানি নিষ্কাশনের জন্য বসানো হয়েছে ১২৬ টি পাম্প যা দিনরাত পানি সেচে চলেছে ।স্থানীয়দের মতে এসব বিলের পানি নিষ্কাশনের করে বোরো ধান আবাদ করলে প্রায় ৯ হাজার একর জমিতে বোরো ধান চাষ করা যাবে ।

পানি নিষ্কাশনের জন্য বিলের বেরিবাদের উপর বসানো হয়েছে পাম্প , আর এ সকল পানি নিষ্কাশন করে ফেলা হচ্ছে পাশেই অবস্থিত হরি নদীতে । প্রায় তিন দশক পরে কেশবপুর ও মনিরামপুরের জনগণ এই সাতাশটি বিলে ফসল ফলানোর স্বপ্ন দেখছেন ।

হরি নদীর পাড় ঘেঁষে রয়েছে পাজিয়া , সুফলাকাঠি , দুর্বাডাঙ্গা ও মনোহরপুর ইউনিয়ন , আর এই চারটি ইউনিয়নের একাংশ জুড়ে রয়েছে খুকশিয়া সহ ছোট-বড় ২৭ টি বিল ।

পূর্বে হরি নদীর জোয়ারের পানি ঢুকে পড়তো চাষীদের ফসলের জমিতে । হরি নদীর পানি নোনা হওয়ায় চাষের জমিতে ফলন অনেক কমে যেত , এজন্য ষাটের দশকে হরি নদীতে দেওয়া হয় বেরিবাধ । এরপর থেকেই নদীর তলদেশে পলি জমতে থাকে যার ফলে ক্রমশই জলাবদ্ধ হয়ে পড়ে বিলগুলো ।

পূর্বে বিলে বোরো ধান আবাদ হলেও গত তিন দশক বিলের পানি না কমায় চাষীদের বোরো ধান আবাদ করা সম্ভব হচ্ছিল না কিন্তু এবার চাষিরা নিজেদের উদ্যোগেই পানি সেচে বোরো ধান আবাদের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে ।

ট্যাগ

আরও পড়তে পারেন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *